Trending Now

করোনা ও ঈদ দীর্ঘশ্বাস বাড়াচ্ছে চরের হতদরিদ্র মানুষের

করোনা প্রভাবে কর্মহীন চরাঞ্চলের মানুষের ঈদ আনন্দ ফ্যাকাসে হতে বসেছে। ঈদ যতই ঘনিয়ে আসছে তাদের দীর্ঘশ্বাস ততই ভারী হচ্ছে। বর্তমানে চরের অধিকাংশ মানুষই কর্মহীন রয়েছে। কাজ না থাকায় অনেকের হাতে নগদ টাকা নেই। কোনো কোনো এলাকায় ধান কাটামাড়াই শুরু হলেও অনেক স্থানে বোরো ধান কাটা মাড়াই করতে আরও প্রায় এক মাস সময় লাগবে।

চলছে পবিত্র রমজান মাস। কদিন পরেই ঈদ। এ অবস্থা চলতে থাকলে চরের বাসিন্দাদের অনেকেরই ভাগ্যে জুটবে না নতুন কাপড়। চরাঞ্চলের জন্য আলাদা কোনো বরাদ্দও না থাকা এবং করোনা প্রভাবে নিত্য পণ্যের আকাশচুম্বী মূলের কারণে চরের মানুষেরা রয়েছে চরম বেকায়দায়।

রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার চর ইচলির বাসিন্দা মোন্নাফ মিয়া, হাবিবুর মিয়া একই উপজেলার মর্নেয়া ইউনিয়নের সিরাজুল ইসলাম জানালের তাদের এলাকায় এখনো ধান কাটা মাড়াই শুরু হয়নি।  তার ওপর করেনা আতঙ্ক এই অবস্থায় তারা পরিবার পরিজন নিয়ে চরম কষ্টে রয়েছেন।

 

গংগাচড়া ইউনিয়নের ইচলি চরের আবেদ আলী, বশির মাঝি, ছয়ফল মিয়া, পীরগাছা উপজেলার কান্দির চরের আলফাজ মিয়াসহ আরও অনেকেই করোনা আতঙ্কে এখন কোন কাজ নেই। দরিদ্রতা ও দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির কারণে তরা হিমসিম খাচ্ছেন ।

গঙ্গাচড়া উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের মধ্যে ৭টি ইউনিয়নেই তিস্তা নদী বেষ্টিত। এসব ইউনিয়নের বুক চিড়ে জেগে উঠেছে প্রায় ২৫ টির বেশি চর। এসব চরে প্রায় ৪০ হাজার মানুষ বাস করে। করোনা আতঙ্ক তাদের কর্মহীন করে দিয়েছে।

রংপুরের গংগাচড়া, কাউনিয়া, পীরগাছা, নীলফামারী জেলার জলঢাকা, ডোমার, ডিমলা লালমনিরহাট জেলার হাতিবান্দা, পাটগ্রাম, তুষ ভাণ্ডার, কুড়িগ্রাম জেলার রৌমারি, চিলমারি, ভুরুঙ্গামারি, নাগেশ্বরী, ফুলবাড়ি, গাইবান্ধার জেলার ফুলছড়ি সাঘাটা, সুন্দরগঞ্জ, দিনাজপুর,বগুড়ার সারিয়াকান্দি,শেরপুর পাবনা রায়গঞ্জ , সিরাজগঞ্জ, রাজশাহীর সহ বিভিন্ন উপজেলার বুক চিড়ে বয়ে গেছে ব্রহ্মপুত্র,পদ্মা, তিস্তা, ধরলা, দুধ কুমার, ঘাঘট, যমুনা, যমুনাশ্বেরী, করতোয়া, বাঙ্গালীসহ প্রায় শতাধিক নদ-নদী উত্তরাঞ্চলের বুক চিড়ে বয়ে গেছে।  এসব নদীকে ঘিরে জেগে উঠা চরগুলোতে বাস করে ২৫ লাখের ওপর মানুষ বাস করে। এর মধ্যে অধিকাংশই দারিদ্র্য সীমার নিচে।  করোনা  তাদের ঈদ আনন্দ ফ্যাকাসে করে দিয়েছে।

রংপুর জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা এটিএম আখতারুজ্জামান, চরের জন্য আলাদা কোনো বরাদ্দ নেই। সরকার এবার প্রচুর সহায়তা দিচ্ছে। এগুলো উপজেলা পর্যায়ে দুস্থ ও গরীবদের মাঝে বিতরণ করা হচ্ছে। এর মধ্যে চরের মানুষও পাবে।

About STAR CHANNEL

Check Also

কুমারখালীতে বৃষ্টির জন্য নামাজ আদায়

বৃষ্টির জন্য কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ইস্তেখারা (নফল) নামাজ আদায় করেছেন গ্রামের মানুষরা। বুধবার সকাল সোয়া ১০টায় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *