Trending Now

অমর একুশে বইমেলা, সফল পরিসমাপ্তিই কাম্য

বাঙালির প্রাণের উৎসব ‘অমর একুশে বইমেলা’ শুরু হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি মেলা উদ্বোধন করেছেন।

প্রতিবছর একুশের মাস ফেব্রুয়ারিতে এ মেলার আয়োজন করা হলেও এবার করোনা মহামারির ভিন্ন প্রেক্ষাপটে, ভিন্ন বাস্তবতায় গতকাল বৃহস্পতিবার অর্থাৎ মার্চ মাসের ১৮ তারিখে শুরু হয়েছে এ মেলা, চলার কথা ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত। তবে দেশব্যাপী নতুন করে করোনার সংক্রমণ বাড়তে থাকায় বইমেলা ঘিরে এক ধরনের অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

বিদ্যমান পরিস্থিতিতে অনেক স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ বইমেলা বাতিল করারও আহ্বান জানিয়েছেন। কাজেই আশঙ্কা করা হচ্ছে, করোনা পরিস্থিতির অবনতি হলে নির্ধারিত সময়ের আগেই মেলার সমাপ্তি টানা হতে পারে।

তাছাড়া এমন এক সময়ে বইমেলার আয়োজন করা হয়েছে, যখন প্রকৃতি হয়ে উঠতে পারে বৈরী। বিশেষ করে বৃষ্টি ও কালবৈশাখী ঝড়ের কারণে মেলায় ছন্দপতন ঘটার আশঙ্কা রয়েছে।

আমরা আশা করব, এসব আশঙ্কাকে অমূলক প্রমাণ করে নির্ধারিত সময় পর্যন্তই বইমেলার আয়োজন চলবে।

বস্তুত করোনা মহামারির কারণে ফেব্রুয়ারিতেই একুশে বইমেলা নিয়ে দেখা দিয়েছিল অনিশ্চয়তা। এমন গুঞ্জনও শোনা গিয়েছিল যে, মেলা হবে অনলাইনে। কিন্তু বিভিন্ন মহল থেকে দাবি তোলা হয় প্রত্যক্ষ বইমেলা আয়োজনের।

এ প্রেক্ষাপটে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে অনুমতি মেলে গ্রন্থমেলা আয়োজনের। ফেব্রুয়ারিতে না হওয়ায় ঐতিহ্যবাহী এ মেলায় অমর একুশের আমেজ হয়তো থাকবে না; তবে লেখক, পাঠক ও প্রকাশকদের স্বার্থ বিবেচনায় এর গুরুত্ব অস্বীকার করার সুযোগ নেই।

কারণ এ গ্রন্থমেলাকে কেন্দ্র করে বছরে সর্বাধিক বই প্রকাশিত হয়। তাই লেখক, পাঠক ও প্রকাশকরা সারা বছর অপেক্ষায় থাকেন একুশে বইমেলার।

এবারের বইমেলার মূল থিম ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী’। জাতির পিতার জীবন ও কর্ম অধ্যয়ন এবং স্বাধীনতার মর্মবাণী জাতীয় জীবনে যাতে প্রতিফলিত হয়, তার ওপর বিশেষ জোর দেওয়া হয়েছে এ থিমের মাধ্যমে।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে এবারের মেলা উৎসর্গ করা হয়েছে মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদদের স্মৃতির উদ্দেশে। বস্তুত বঙ্গবন্ধু, ভাষা আন্দোলন, স্বাধীনতা সংগ্রাম, মুক্তিযুদ্ধ- এ সবকিছু আমাদের জাতীয় জীবনের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত এবং একটি অপরটির সঙ্গে সম্পর্কিত। বইপ্রেমীরা মেলায় এসে এ সংক্রান্ত নানা গ্রন্থের সঙ্গে পরিচিত হতে পারবেন।

করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে এবার বইমেলার পরিসর বাড়ানো হয়েছে। জানা গেছে, বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণ এবং সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের প্রায় ১৫ লাখ বর্গফুট জায়গাজুড়ে আয়োজন করা হয়েছে মেলার। তারপরও নতুন করে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় মেলায় আগত পাঠক ও দর্শকরা যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবেন, এটাই কাম্য।

পাঠকদের প্রতি আমাদের অনুরোধ থাকবে, তারা যেন স্টলগুলোতে একসঙ্গে ভিড় না করেন। এ ব্যাপারে স্টলের বিক্রয়কর্মীদেরও দায়িত্ব রয়েছে। আমরা জাতির মেধা, মনন ও সৃজনশীলতার অনন্য এ আয়োজনের সফল পরিসমাপ্তি প্রত্যাশা করি।

About STAR CHANNEL

Check Also

কর্মক্ষেত্রে যৌন সহিংসতা : আমাদের করণীয়

স্বাধীনতা-পরবর্তী ৫০ বছরে বাংলাদেশে কর্মক্ষেত্রে ও শিক্ষাক্ষেত্রে নারীর অংশগ্রহণ বৃদ্ধি পেয়েছে অনেক। যদিও প্রাতিষ্ঠানিকভাবে শিক্ষিত …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *