Trending Now

প্রধানমন্ত্রী সব সময় উদ্যোক্তাদের পাশে আছেন : শিক্ষামন্ত্রী

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, বঙ্গবন্ধু কন্যার সরকার সবসময়ই উদ্যোক্তাদের পাশে আছেন। কেউ নতুন কিছু করতে চাইলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের সহায়তা দেন, উৎসাহ দেন।

মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার কেওয়া দক্ষিণখণ্ড এলাকার দেলোয়ার দম্পতির ফুলের বাগান মৌমিতা ফ্লাওয়ার্স পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, গাজীপুরের শ্রীপুরে ফুলের বাগানে বিদেশী ফুল ‘টিউলিপ’ ফুটিয়ে বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন দেলোয়ার দম্পতি। উদ্যোক্তাদের মধ্যে তারা অন্যতম মডেল। তারা তাদের চেষ্টায় সফল হয়েছেন। ইতিমধ্যে তারা ফল, ফুল ও সব্জি চাষে অনেককে প্রশিক্ষিত করে তুলেছেন। তারা তিন শতাধিক উদ্যোক্তা তৈরিরও কারিগর। তাদের ফলানো টিউলিপ ফুল বিদেশে রফতানি করার সম্ভাবনা রয়েছে। যেভাবে তারা উদ্যোক্তা তৈরি করছেন, সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা পেলে তারা এটাকে বিস্তৃত করতে পারবেন।

 

দেলোয়ার দম্পতির উদাহরণ টেনে তিনি বলেন, শিক্ষাজীবন শেষ করে শিক্ষার্থীরা চাকরি না খুঁজে উদ্যোক্তা হয়ে উঠবেন। তাদের উদ্যোক্তা হতে সরকারিভাবে নানা ধরনের প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাও চান আমাদের ছেলেমেয়েরা উদ্যোক্তা হবে, নতুন নতুন কাজ তৈরি করবে। নিজেরা অন্য আরও দশজনকে চাকরি দেবে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন শ্রীপুর পৌরসভার মেয়র আনিছুর রহমান, শ্রীপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল, শ্রীপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট শামসুল আলম প্রধান, গাজীপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট রিনা পারভীন, শ্রীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তাসলিমা মোস্তারী, শ্রীপুর পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুরে আলম মোল্লা, গাজীপুর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল আলম রবিন প্রমুখ। এসময় তিনি দেলোয়ার দম্পতির টিউলিপ, বিদেশি গোলাপ ফুল, ক্যাপসিকাম, স্ট্রবেরী বাগানসহ অন্যান্য কার্যক্রম পরিদর্শন করেন।

প্রসঙ্গত, প্রায় ৭ একর জমিতে কালার ক্যাপসিকাম, গ্রীন ক্যাপসিকাম, টিউলিপ ফুল, ওরিয়েন্টাল লিলি, ডাচ গোলাপ, দেশী গোলাপ, স্ট্রবেরী, জি-৯ কলাসহ বিভিন্ন ফুল ফলের চাষ ও চারা তৈরি করেন দেলোয়ার হোসেন দম্পতি। ওই দম্পতি জানান, ২০০২ সাল থেকে নিজের কিছু জমিতে এসব চাষাবাদ শুরু করেন। পরে তা নিজের পাঁচ বিঘা ও চুক্তিতে নেয়া ১৫ বিঘা জমিতে তা সম্প্রসারণ করেন। সারা দেশে তিনি এসব চাষে ৩০০ জন উদ্যোক্তা তৈরি করেছেন।

এসব চাষাবাদে কিছু সমস্যার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, এ প্রকল্পে ব্যাংকগুলো পর্যাপ্ত ব্যাংক ঋণ দেয় না। যে ঋণ পাওয়া যায় তাও চড়া সুদে। সরকার তাকে সহযোগিতা করলে ফুল-সবজি চাষ করে দেশের অনেক উন্নতি ঘটানো সম্ভব।

About STAR CHANNEL

Check Also

কোয়াড-এ যোগ দেওয়ার বিষয়ে যা বললেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের কৌশলগত জোট ‘কোয়াড’-এ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *